হিমান পত্রিকা নিয়ে দু-চার কথা

বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। কিন্তু আজকালকার দিনের বাঙালি ছেলেমেয়েরা তাদের মাতৃভাষার প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার দেখায় না। আশ্চর্য এখানেই লাগে যে পাশের দেশের মানুষ যখন ভাষা আন্দোলন করে শহিদ হতে কসুর করেনি তখন আমাদের দেশের বাঙালিরা তাদের মাতৃভাষাকে সতীনসম মনে করে। এইভাবে চলতে চলতে দেখা যাবে এদেশ থেকে বাংলা ভাষায় কথা বলার মানুষই বিলুপ্ত। সত্যিই কি তাই চান? আসুন না আমরা সমবেতভাবে চেষ্টা করে দেখি বাংলা ভাষাটিকে বাঁচিয়ে রাখার। গল্প, উপন্যাস, কবিতা, ছড়া, রম্যরচনা, অনুবাদ, আলোচনা, কমিকস, প্রবন্ধ শিশুকিশোর উপযোগী যে-কোনো ধরনের লেখা বা কাজই আমাদের ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন।

অন্দরসজ্জায় টেরাকোটা - প্রিয়াঞ্জনা রক্ষিৎ


প্রতিটি ঘরই একটা করে গল্প বলে, প্রতিটি বাড়ির একটা নিজস্ব গল্প থাকে। ঐতিহ্য, সংস্কৃতির আবহে নিজের পছন্দের জিনিস দিয়ে ঘর সাজাতে চায় যে কেউ! সে জিনিসগুলো আবার যদি হয় মাটির তৈরি হয় তাহলে সেখানে কিছু আবেগও মিশে থাকে। এই মাটির তৈরি জিনিসগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো টেরাকোটার কাজ, যা আপনাকে নিয়ে যাবে গ্রামীণ শিল্পের শৈল্পিকতে। ইদানিং ঘর সাজানোর ক্ষেত্রে বেশ কয়েক বছর ধরেই এই টেরাকোটা একটি জনপ্রিয় উপকরণ।


Terracotta pottery making

টেরাকোটার জিনিস তৈরির জন্য পোড়াস মাটি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এই মাটি দিয়ে জিনিস তৈরি করে তা রদে শুকিয়ে তারপর সেটি আগুনে পুড়িয়ে তৈরি হয় এই টেরাকোটা। আগুনে পুড়িয়ে বেক করা হয়ে থাকে বলে একে 'বেকড আর্থ'-ও বলা হয়ে থাকে। এই টেরাকোটার জিনিস এখন বিভিন্ন জায়গায় পাওয়া যায়। যেমন- শিশু একাডেমীর সামনে দেওয়াল চত্ত্বরে, নিউ মার্কেট ইত্যাদি জায়গা ছাড়াও এই সমস্ত বিভিন্ন মাপের টেরাকটার জিনিস প্রস্তুত করা অবস্থায় পাওয়া যায় বিভিন্ন মৃৎশিল্পীদের দকানে অথবা এইরকম শিল্পীদের সরাসরি যগাযোগ করেও পছন্দ মতো জিনিস বানিয়ে নেওয়া যেতে পারে।

টেরাকোটার বহুমুখী ব্যাবহারের কারণে এটি দিয়ে নানান ধরণের পণ্যসামগ্রী নানা পদ্ধতিতে তৈরি করার সুযোগ রয়েছে - এবার সেটি কখনও প্লেইন বা নন গ্লেইজড হতে পারে, আবার কখনও পালিশ করা বা গ্লেইজডও হতে পারে। তবে প্রতিটি জিনিসই সমানভাবে শৈল্পিকতার নিদর্শন রেখে যায়।

এবার আসা যাক কিভাবে টেরাকোটার জিনিস ঘর সাজানোর অন্যতম উপাদান হিসাবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে তার সম্পর্কে আপনাদের  কিছু ধারনা দিতে।


অন্দরসজ্জার সময় বাহারি নকশা করা পোড়ামাটির ফলক দিয়ে অনায়াসেই ঘরের দেওয়াল সাজানো যায়। বসার ঘরের দেওয়ালের কোনো একটা পাশে টানা টেরাকোটার কাজ এক লহমায় ঘরের সমস্ত রুপ পরিবর্তন করে দেয়।

এখন সুন্দর সুন্দর দেখতে টেরাকোটার অনেক শো'পিস বা ঘর সাজানোর পুতুল বা জিনিস পাওয়া যায়। যেমন টেপা-পুতুল, বাঁকুরার বোঙা হাতি আর কলমকারি ঘোড়া থেকে শুরু করে ফুলদানি, গাছের টব ইত্যাদি অনেক কিছুই কিনতে পাওয়া যায় বিভিন্ন দকানগুলিতে। টেরাকোটার তৈরি ফুলদানি আপনি আপনার মনের মত ফুল দিয়ে সাজিয়ে তুচলতে পারেন। আবার টেরাকোটার নকশা কাটা টবে ফুল কিংবা পাতাবাহার গাছও লাগাতে পারেন।

মাটির পাত্রে স্বচ্ছ জল রেখে ঘর ঠাণ্ডা করার পদ্ধতি অনেক পুরোনো হলেও তা আম্মাদের জীবনে আবারও ফিরে এসেছে। জলভর্তি কোনো নকসা কাটা মাটির পাত্রে ছোট ছোট ফুল ও তার পাপড়ি ছিঁড়ে সাজিয়ে দিন, ঘরের পরিবেশ সুন্দরভাবে পালটে যাবে।

অবশেষে বলি যে টেরাকোটার জিনিস দিয়ে ঘর সাজানোর সাথে এই জিনিসগুলির যত্ন নেওয়ারও প্রয়োজন আছে, এবং খুব সতর্কভাবে ব্যবহার করা উচিৎ। সময়ে সময়ে এগুলি পরিষ্কার করতে হবে কারন মাটির তৈরি জিনিসে ধুলোবালি একটু বেশি চোখে পড়ে। এর এই সমস্ত দিক মাথায় রাখতে পারলেই আপনার স্বপ্নের ঘর বা বাড়িকে এই টেরাকোটার রঙ বা থিম দিয়ে মুড়ে দিতে পারবেন।


Image sources:-

Indoor plants photo created by rawpixel.com
House plant photo created by rawpixel.com
Potter photo created by pressfoto

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আমাদের পত্রিকার জনপ্রিয় পোস্টগুলি